নেতৃত্বে আসতে চায় একঝাঁক তরুন সংগঠক

1014
Advertisement

: দীপ্ত হান্নান : স্থবিরতার খরায় আটকে থাকা ক্রীড়াঙ্গনে গতি ফেরাতে জেলা ক্রীড়া সংস্থার নেতৃত্বে আসতে চায় একঝাঁক বয়সে তরুন নতুন সংগঠক। সবারই চোখে, ব্যর্থতার বলয় থেকে বের করে এনে ক্রীড়াঙ্গনকে প্রাণোচ্ছল করে তোলার পাশাপাশি অন্য উচ্চতায় নিয়ে যাওয়ার স্বপ্ন। এ স্বপ্ন নিয়ে একেবারে নতুন পনের জন প্রার্থী নির্বাচন করছেন ডিএসএ,র নির্বাচনের বিভিন্ন পদে।

এদের কেউ সাবেক খেলোয়াড়, কেউ বা ক্রীড়া সংগঠক। কেউ কেউ আবার খেলোয়াড় বা সংগঠক না হয়েও ছিলেন ক্রীড়া পাগল। দুরন্ত বয়সের সবকিছুই ক্রীড়ার সাথে সম্পৃত্ত রাখা এরা এবার হাল ধরতে চায় রাঙ্গামাটি জেলা ক্রীড়া সংস্থার। কাউন্সিলর হয়ে আসার তালিকা থেকে প্রথমবারের মত নির্বাচন করতে যাচ্ছেন তারা। সকলেই চান, জেলার ক্রীড়াঙ্গনে প্রাণ ফিরুক, খেলোয়াড় ও সংগঠকদের পদচারণায় প্রানোচ্ছল হয়ে উঠুক জেলার মাঠ-ময়দান।

এবারই প্রথম জেলা ক্রীড়া সংস্থার সহ সভাপতি পদে নির্বাচন করছেন পৌর মেয়র আকবর হোসেন চৌধুরী। পদাধিকার বলে পৌরসভার কাউন্সিলর। তার একটি প্রত্যাশা নামে ক্লাব রয়েছে। নির্বাচন করার পিছনে কারণ জানতেই তিনি বলেন, আমি খেলাধুলা ভালবাসি। রাঙ্গামাটি ক্রীড়াঙ্গনের জন্য কিছু করতে চাই বলে, আমি নির্বাচন করছি। বর্তমানে আমি যে দায়িত্বে আছি, সে জায়গা থেকে রাঙ্গামাটি ক্রীড়াঙ্গনের অবকাঠামো উন্নয়ন, নিয়মিত টুর্ণামেন্ট ও প্রশিক্ষন ক্যাম্প আয়োজনের সুযোগ আছে। এটি করতে পারলে, নিজেকে ধন্য মনে করবো।

সাবেক ফুটবলার প্রদীপ বড়ুয়া জাতীয় দলে না খেললেও, খেলেছেন দেশ সেরা ক্লাবগুলোতে। নিজের জীবনের দুরন্ত সময়গুলোকে বিলিয়ে দিয়েছেন মাঠে ময়দানে। এবার রাঙ্গামাটির জন্য কিছু দিতে চান ব্যক্ত করে প্রদীপ বড়ুয়া বলেন, আমার জীবনের অর্জিত সব অভিজ্ঞতা আমি কাজে লাগাতে চাই রাঙ্গামাটির ক্রীড়াঙ্গনের জন্য। আমি চাই, রাঙ্গামাটি থেকে আরো বেশি বেশি খেলোয়াড় উঠে আসুক। এজন্য জেলা ক্রীড়া সংস্থার সদস্য পদে নির্বাচনে অংশ নিচ্ছি।

জেলা ক্রিকেট দলের সাবেক খেলোয়াড় বেনু দত্ত দীর্ঘদিন একাধারে রাঙ্গামাটি ক্রিকেটের প্রথম সারির খেলোয়াড় ছিলেন। নেতৃত্ব দিয়েছেন ক্লাব ও জেলা দলকে। এখন সংগঠক হিসেবে কাজ করে যাচ্ছেন। গতবার কাউন্সিলর থাকলেও নির্বাচন করেন নি। এবার সদস্য পদে নির্বাচিত হয়ে তিনি জেলা ক্রীড়াঙ্গনের দায়িত্ব নিতে চান। বেনু দত্ত বলেন, ক্রীড়াঙ্গনকে কিছু দিতে পারা ভাগ্যের ব্যাপার। রাঙ্গামাটির ক্রিকেটকে অন্য উচ্চতায় নিয়ে যেতে চাই।

প্রতিভা ক্রিকেট ক্লাব থেকে কাউন্সিলর হয়ে প্রথম এলেন মো: আবু তৈয়ব। এবার নির্বাচন করছেন সদস্য পদে। ভীষন পরোপকারী ও ক্রীড়া পাগল একজন মানুষ। অন্যের বিপদ-আপদে ঝাঁপিয়ে পড়া একজন নিঃস্বার্থ মানুষ। নির্বাচনী বৈতরণী পার করতে রাত-দিন কাটছেন। আবু তৈয়ব বলেন, ক্লাবের হয়ে অনেক কাজ করেছি এবার ইচ্ছে জেলার ক্রীড়াঙ্গনের হয়ে নিজের সবটুকু ঢেলে দিতে।

জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাবেক অফিস সচিব রীজেশ বড়ুয়া রুমেল এবার নির্বাচন করছেন কোষাধ্যক্ষ পদে। ১৪ বছর চাকরি করেছেন জেলার ক্রীড়াঙ্গনের সর্বোচ্চ এ সংস্থায়। এবারও নির্বাচিত হয়ে ক্রীড়াঙ্গনের জন্য কিছু করতে চান। অত্যন্ত পরিশ্রমী ও কর্মট রুমেল বলেন, নির্বাচিত হতে পারলে নতুন করে ঢেলে সাজানোর চেষ্টা করবো ডিএসএ, কে।

এর বাইরেও প্রথমবারের মত জেলা ক্রীড়া সংস্থার সদস্য পদে নির্বাচন করছেন ঝিনুক ত্রিপুরা (বলাকা ক্লাব), মোঃ শাহ আলম ( আমানত বাগ স্পোর্টিং ক্লাব), মো: সাইফুল আলম রাশেদ (রফিক স্মৃতি ক্রিকেট ক্লাব), ইন্দ্র দত্ত তালুকদার (আর্যদেব লয়্যাল ক্লাব), মোঃ তৌহিদুল আলম মামুন (প্রতিভাস ক্লাব), মোঃ নুরুল মোস্তফা মিনার (বীরশ্রেষ্ঠ মুন্সী আব্দুর রব), ফারুক আহম্মদ তালুকদার (শাপলা যুব সংঘ), মোঃ ওয়াহিদুল আলম (সৃষ্টি স্পোর্টিং ক্লাব)।

এছাড়া উপজেলা ক্রীড়া সংস্থার সংরক্ষিত আসনে নতুনদের মধ্যে নির্বাচন করছেন ঝিল্লোল মজুমদার (নানিয়ারচর) ও বিদর্শন বড়–য়া (কাপ্তাই)।